কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস ও করোনা ভাইরাস পরবর্তী অর্থনীতি-০৩

বিষয়: আরজেএসসি তে প্রতিবছর Partnership Firm এর Return Filling করন আইনগত ভাবে বা অতিব জরুরী পরিপত্র বা আদেশ জারীর মধ্যমে বাধ্যতামূলক করার মাধ্যমে সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধি করনের জন্য আবেদন।
আমি নিম্ন স্বাক্ষরকারী দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন কোম্পানী, পার্টনারশীপ ফার্ম, ট্রেড অর্গানাইজেশন, সোসাইটি, ফাউন্ডেশন, ট্রাষ্ট, ট্যাক্স, ভ্যাট এর আইনগত প্রতিনিধি বা কনসালটেন্ট হিসেবে কাজ করে আসছি। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অদম্য বাংলাদেশ যখন আজ উন্নয়নের অভিযাত্রায় অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে চলেছে তখন দেশের অগ্রযাত্রা ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে রাজস্ব বৃদ্ধি, দুর্নীতি প্রতিরোধ একটি অগ্রাধিকার ভিত্তিক গুরুত্ব পূর্ণ বিষয়। বিরাজমান আইনি কাঠামোর ভেতর কতিপয় সংশোধন সাপেক্ষে বা অতিব জরুরী পরিপত্র বা আদেশ জারীর মধ্যমে বর্তমান আদায়যোগ্য রাজস্বের পরিমাণ ও গ্রাহক সেবার মান বহুগুণে বৃদ্ধি করা সম্ভব। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে, দেশরত্ন শেখ হাসিনার অনুসারী এক নগণ্য কর্মী হয়ে, একজন দেশপ্রেমিক সচেতন নাগরিক হিসেবে বাংলাদেশের অধিকতর আর্থিক উন্নয়নের জন্য আমার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার আলোকে সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধির লক্ষ্যে নিম্ন লিখিত কিছু প্রস্তাবনা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বিবেচনার জন্য তুলে ধরছি। আপনার অধীনস্থ রাজস্ব আহরণকারী একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিদপ্তর আরজেএসসি। আরজেএসসি থেকে পার্টনারশীপ আইন-১৯৩২ অনুসারে Partnership Firm নিবন্ধন দেয়া হয় কিন্তু নিবন্ধনের পর আরজেএসসি তে প্রতিবছর কোন Return Filling করা হয় না। যার কারনে প্রতি বছর সরকার কোটি কেটি টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে। পাবলিক লিমিটেড কোম্পানী, প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানী, পার্টনারশীপ ফার্ম, ফরেইন কোম্পানী, লিয়াজো অফিস, ট্রেড অর্গানাইজেশন ও সোসাইটি সবগুলো প্রতিষ্ঠানই আরজেএসসি থেকে রেজিষ্ট্রেশন বা নিবন্ধন দেয়া হয়। যেখানে পাবলিক লিমিটেড কোম্পানী, প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানী, ফরেইন কোম্পানী, লিয়াজো অফিস, ট্রেড অর্গানাইজেশন ও সোসাইটি সহ সকল আইনে বাধ্যতামূলক ভাবে কমিটি প্রতি বছর আরজেএসসি তে Z Return Filling করতে হয় এবং সরকার অনেক রাজস্ব পায়। সেখানে Partnership Firm নিবন্ধন এর পর থেকে প্রতি বছর আরজেএসসি তে Return Filling এর ব্যবস্থা করলে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আহরণ করতে পারবে। যেমন Society এর মত প্রতি বছর Partnership Firm এর Return Filling যদি ১৪০০ টাকা + ১৫% ভ্যাট হয়, তাহলে বর্তমানে প্রতিবছর সরকার পাবে ৪২৯০০X১৪০০+১৫% ভ্যাট=৬,০০,৬০,০০০ টাকা (প্রায়)। কারন বর্তমানে আরজেএসসি তে Partnership Firm  নিবন্ধন ৪২৯০০ অতিক্রম করেছে, Partnership Firm নিবন্ধনের পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত প্রতিটি Partnership Firm এর যদি আরজেএসসি তে Return Filling বাধ্যতামূলক করা হয় এবং প্রতিটি ব্যাংকের শাখাকে যদি বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ অতিব জরুরী নোটিশ বা পরিপত্র বা আদেশ জারী করে যে, আরজেএসসি থেকে নিবন্ধিত পার্টনারশীপ ফার্ম এর যদি কোন ব্যাংক বা লিজিং ফাইন্যান্স এর কোন শাখায় হিসাব খোলা থাকে তাহলে উক্ত নিবন্ধিত Partnership Firm এর প্রতি বছর List of Partner of the Partnership Firm (যেখানে List of Partner of the Partnership Firm এ পার্টনারগণের নাম, পদাবী, অংশ ও বিনিয়োগের পরিমান উল্লেখ থাকবে) ব্যাংকে জমা করা বাধ্যতা মূলক। উদাহরণ স্বরুপ, যেমন Society আইনে প্রতি বছর List of Executive Committee জমা করা হয়। তদরুপ যদি Partnership Firm এ List of Partner জমা প্রতি বছর বাধ্যতা মূলক করা হয় তাহলে Partnership Firm নিবন্ধনের শুরু থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত সরকারের নূন্যতম প্রায় শত কোটি টাকা রাজস্ব সম্ভব এবং পরবর্তীতে প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আদায় চলমান থাকবে এবং ওয়েজেজ ভিত্তিতে প্রতি বছর রাজস্ব বৃদ্ধি পেতে থাকবে এবং কোম্পানীর তফসীল ১০ এর ন্যায় ১৮ নং কলামে ঋনের পরিমান উল্লেখ করা হয় তদরুপ Partnership Firm এর List of Partner of the Partnership Firm এ ঋনের পরিমাণ উল্লেখ থাকবে। তাই পার্টনারশীপ ফার্ম এর প্রতিবছর রিটার্ন ফাইলিং এর ব্যবস্থা করা খুবই জরুরী তাহলে বিশ্বে অর্থনীতির সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান এগিয়ে যাবে এবং অর্থনৈতিক ভাবে দেশ শক্তি শালী হবে।
যাহাতে আরজেএসসি তে প্রতিবছর Partnership Firm এর বিরাজমান আইনি কাঠামোর ভেতর কতিপয় সংশোধন সাপেক্ষে বা অতিব জরুরী পরিপত্র বা আদেশ জারীর মধ্যমে Return Filling বাধ্যতামূলক করে এর মাধ্যমে সরকােের রাজস্ব বৃদ্ধি করার ব্যবস্থা করা হয় তাহার বিহীত বিধান করার আজ্ঞা হয়।
সদয় ও অবগতির যথাযথ আইনানুগব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অনুলিপি (জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে নহে):-১। সচিব, বানিজ্য মন্ত্রনালয়, বাংলাদেশ সচিবলায়, ঢাকা। ২। সচিব, অর্থ মন্ত্রনালয়, বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা। ৩। সচিব, আইন মন্ত্রনালয়, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রনালয়, বাংলাদেশ সচিবলায়, ঢাকা। ৪। সচিব, (জন নিরাপত্তা) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়, বাংলাদেশ সচিবলায়, ঢাকা। ৫। চেয়ারম্যান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, সেগুনবাগিচা, ঢাকা।
৬। গভর্নর, বাংলাদেশ ব্যাংক, বাংলাদেশ ভবন, মতিঝিল, ঢাকা। ৭। চেয়ারম্যান, সিকিউরিটিজ এন্ড একচেη কমিশন, এসইসি ভবন, আগারগাঁও, ঢাকা। ৮। চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, বিডা ভবন, আগারগাঁও, ঢাকা ।

মো: আবুল বরকত সেরনিয়াবাত
কনসালটেন্ট
এম.এ, এমবিএ, এলএল.বি, এলএল.এম,
প্রাক্টিক্যাল ট্যাক্স এন্ড ভ্যাট ম্যানেজমেন্ট (বি আই এম)
সিএস (এফ. লেভেল), মাষ্টার অব ট্যাক্স ম্যানেজমেন্ট (ঢা:বি:)
ঠিকানা: ৫৬০/১, কাজীপাড়া, বাস স্ট্যান্ড, মিরপুর, ঢাকা-১২১৬
মোবাইল: ০১৭১১৩৫১৫৮১

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

ফেসবুকে আমরা..