ফাইনালের পথে এগিয়ে যেতে কাল মুখোমুখি মাহমুদুল্লাহ একাদশ ও নাজমুল একাদশ

তিন দলের প্রেসিডেন্টস কাপ ওয়ানডে টুর্নামেন্টের লিগ পর্বের প্রথম রাউন্ডের খেলা শেষ হয়েছে। তিনটি দলই দু’টি একটি করে ম্যাচ খেলেছে। জয় পেয়েছে একটি করে। তাই সমান অবস্থায় রয়েছে মাহমুদুল্লাহ একাদশ, নাজমুল একাদশ ও তামিম একাদশ। আগামীকাল থেকে দ্বিতীয় রাউন্ড শুরু হচ্ছে।
দ্বিতীয় রাউন্ডের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে মাহমুদুল্লাহ একাদশ ও নাজমুল একাদশ। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে বেলা ১টা ৩০ মিনিটে।
প্রথম রাউন্ডের প্রথম ম্যাচেও দেখা হয়েছিলো এই দুই দলের ঐ ম্যাচে ৪ উইকেটে জয় পেয়েছিলো নাজমুল একাদশ। নাজমুল একাদশের অধিনায়ক ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত। আর মাহমুদুল্লাহ একাদশের অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।
ঐ ম্যাচে মাহমুদুল্লাহ একাদশের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে বোলিং করার সিদ্বান্ত নেয় নাজমুল একাদশ। ব্যাট হাতে নেমে বড় স্কোর করতে পারেনি মাহমুদুল্লাহ একাদশ। ৪৭ দশমিক ৩ ওভারে ১৯৬ রানে অলআউট হয় তারা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫১ রান করেন মাহমুদুল্লাহ। তার ৮২ বলের ইনিংসে ৩টি চার ও ১টি ছক্কা ছিলো। এছাড়া ইমরুল কায়েস ৪০ ও সাব্বির রহমান ২২ রান করেন। নাজমুল একাদশের পেসার তাসকিন আহমেদ ৩৭ রানে ২টি, আল আমিন ৪০ রানে ২টি ও মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধ ৪৪ রানে ২ উইকেট নেন।
জয়ের জন্য ১৯৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাট হাতে নেমে সমস্যা পড়েছিলো নাজমুল একাদশও। ৭৯ রানে ৫ উইকেট হারায় তারা। সাইফ হাসান ১৭, সৌম্য সরকার ২১, শান্ত ২৮, মুশফিকুর রহিম ১ ও আফিফ হোসেন ৪ রান করে ফিরেন। এরমধ্যে পেসার এবাদত হোসেনের শিকার ছিলো তিনটি।
উপরের সারির ব্যাটসম্যানদের হারিয়ে চাপে থাকা নাজমুল একাদশকে খেলায় ফেরানোর চেষ্টা করেন তৌহিদ হৃদয় ও ইরফান শুক্কুর। মাহমুদুল্লাহ একাদশের বোলারদের দেখেশুনে খেলে রানের চাকা ঘুড়াতে থাকেন হৃদয়-শুক্কুর। দু’জনই হাফ-সেঞ্চুরি তুলে ম্যাচের লাগাম নিয়ে নেন। ষষ্ঠ উইকেটে ১০৫ রানের জুটি গড়েন দলকে জয়ের পথে রাখেন হৃদয়-শুক্কুর।
২টি করে চার-ছক্কায় ৬৭ বলে ৫২ রান করে ফিরেন হৃদয়। তবে ৭৮ বলে ৬টি চারে ৫৬ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন শুক্কুর।
ছক্কা মেরে দলের জয় নিশ্চিত করেন নাইম হাসান। ৪ বলে ৭ রানে অপরাজিত থাকেন নাইম। মাহমুদুল্লাহ একাদশের এবাদত ৪৬ রানে ৩ উইকেট নেন। তাই ষষ্ঠ উইকেটে হৃদয়-শুক্কুরের ১০৫ রানের জুটির কল্যাণে জয় দিয়ে বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে যাত্রা শুরু করে নাজমুল একাদশ।
টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে হারলেও, দ্বিতীয় ম্যাচে ঘুড়ে দাড়ায় মাহমুদুল্লাহ একাদশ। তামিম একাদশের বিপক্ষে ৫ উইকেটে জয় তুলে নেয় মাহমুদুল্লাহ একাদশ।
তামিম একাদশের অধিনায়ক জাতীয় দলের ওয়ানডে দলনেতা তামিম ইকবাল। ঐ ম্যাচে দারুন বোলিং পারফরমেন্স প্রদর্শন করেন মাহমুদুল্লাহ একাদশের বোলাররা। চার বোলার রুবেল হোসেন-সুমন খান-মেহেদি হাসান মিরাজ ও আমিনুল ইসলাম বিপ্লবের বোলিং দৃঢ়তায় তামিম একাদশ ২৩ দশমিক ১ ওভারে ১০৩ রানে অলআউট হয়। দুই পেসার রুবেল ও সুমন ৩টি করে এবং দুই স্পিনার মিরাজ ও বিপ্লব ২টি করে উইকেট নেন। তামিম একাদশের তানজিদ হাসান তামিম সর্বোচ্চ ২৭ রান করেন। ১৮ বল খেলে ৩টি চার মারেন তিনি। এছাড়া আনামুল হক বিজয় ২৫ ও মাহাদি হাসান ১৯ রান করেন।
জবাব দিতে নেমে বিপদে পড়েছিলো মাহমুদুল্লাহ একাদশও। শুন্য রানে ৩ উইকেট হারায় তারা। পরবর্তীতে মোমিনুল হকের ৩৯ ও নুরুল হাসান সোহানের অপরাজিত ৪১ রানের সুবাদে ৫ উইকেটে জয় পায় মাহমুদুল্লাহ একাদশ।
জয় দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করলেও, নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেই হেরে যায় নাজমুল একাদশ। গতকাল তামিম একাদশের কাছে ৪২ রানে হারে তারা। ১০৩ রানের ইনিংস খেলেও দলের হার এড়াতে পারেননি নাজমুল একাদশের মুশফিকুর রহিম।
নয় নম্বরে নামা মাহাদির ৫৭ বলে ৯টি চার ও ৩টি ছক্কা ৮২ রান ও বোলারদের নৈপুন্যে প্রথম জয়ের স্বাদ নেয় তামিম একাদশ।
মাহমুদুল্লাহ একাদশ : মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), নাঈম শেখ, লিটন দাস, মোমিনুল হক, মাহমুদুল হাসান, নুরুল হাসান সোহান, সাব্বির রহমান, ইমরুল কায়েস, হাসান মাহমুদ, এবাদত হোসেন, রুবেল হোসেন, মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী, মেহেদি হাসান মিরাজ, রাকিবুল হাসান, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, আবু হায়দার রনি, সানজামুল ইসলাম ও হাসান মুরাদ।
নাজমুল একাদশ : নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক), সৌম্য সরকার, সাইফ হাসান, আফিফ হোসেন, মুশফিকুর রহিম, তৌহিদ হৃদয়, ইরফান শুক্কুর, পারভেজ হোসেন ইমন, তাসকিন আহমেদ, আল আমিন হোসেন, আবু জায়েদ রাহি, মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধ, নাঈম হাসান, নাসুম আহমেদ, রিশাদ হোসেন, সুমন খান, সাদমান ইসলাম ও তানভির ইসলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

ফেসবুকে আমরা..