ব্রেকিং নিউজ :
জেন্ডার ভারসাম্য ও সমতা ভিত্তিক সমাজ গড়তে গণমাধ্যমের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ : মহিলা পরিষদ করোনা পরিস্থিতিতেও বিনামূল্যে এইডস রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী লেকসহ রমনা পার্কের সার্বিক সৌন্দর্য বৃদ্ধিকরণ প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের পরামর্শ শান্তিপূর্ণভাবে বিরোধ নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বিশ্বে অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে : রাষ্ট্রপতি সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশের সর্বত্র শান্তি বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর : প্রধানমন্ত্রী সিলেট বিভাগে ২৪ ঘন্টায় করোনায় সুস্থ হয়েছেন ৩৩ জন শুরু হলো বঙ্গবন্ধু জাতীয় টার্গেটবল আজ থেকে শুরু হয়েছে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বিজয়ের মাস ডিসেম্বর ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজের নবনিযুক্ত কমান্ড্যান্টের দায়িত্ব গ্রহণ বর্ষা মৌসুমের আগেই দক্ষিণ সিটির খাল দখলমুক্ত করা হবে : ডিএসসিসি মেয়র
  • আপডেট টাইম : 12/11/2020 05:13 PM
  • 13 বার পঠিত

 স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, আধুনিক সুযোগ-সুবিধার পাশাপাশি আধুনিক সমস্যার কথা বিবেচনায় রেখেই নগর উন্নয়ন পরিকল্পনা করতে হবে।
তিনি আজ রাজধানীর প্রেস ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (পিআইবি)তে নগর উন্নয়ন সাংবাদিক ফোরাম-বাংলাদেশ (ইউডিজেএফবি)’র সাংবাদিকদের জন্য নগর পরিকল্পনা, উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক রিপোটিং প্রশিক্ষণের সমাপনী ও সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ‘শহরমুখী মানুষকে জোর করে আটকানো যাবে না, প্রতিটি গ্রামে আধুনিক নগর সুবিধা পৌঁছে দিতে হবে। সেজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার ‘আমার গ্রাম আমার শহর’ বিশেষ কর্মসূচি বাস্তবায়নের অঙ্গীকার ঘোষনা করেছে।’
তিনি বলেন, আধুনিক নগরীর সুযোগ-সুবিধা দিতে গিয়ে যেন আধুনিক সমস্যার সৃষ্টি না হয়, সেদিকে আমাদের সকলকে খেয়াল রাখতে হবে। এ বিষয়ে নগর পরিকল্পনাবিদসহ সংশ্লিষ্টদের বাস্তবভিত্তিক পরামর্শ প্রদান করতে হবে।
রাজধানীকে বাসযোগ্য, পরিবেশ বান্ধব ও টেকসই করার লক্ষ্যে পরিকল্পিতভাবে সম্প্রসারণ করতে হবে উল্লেখ করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, রাজধানীর হাতিরঝিল থেকে গুলশান-বনানী-মহাখালী ও বালু নদী পর্যন্ত ওয়াটার কান্কেটিভিটি তৈরি করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।
তিনি বলেন, ঢাকা শহরের সবগুলো খালকে হাতিরঝিলের আদলে তৈরি করে এগুলোতে ওয়াকওয়ে ও ওয়াটার ট্রান্টপোর্ট করা হবে এবং এ লক্ষ্যে প্রকল্পও গ্রহণ করা হয়েছে। রাজধানীতে যানযট লাঘব করতে হলে মেট্রোরেল, সাবওয়ে ও রাস্তা নির্মাণের পাশাপাশি ওয়াটার সার্ভিস চালু করতে হবে।
মহানগরীতে সুউচ্চ ভবন নির্মাণ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, একটি বড় বিল্ডিংয়ে যে সংখ্যক মানুষ বাস করবে তাদের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কমিউনিটি ক্লিনিক, বিপনী বিতান ও বিনোদনসহ অন্যান্য ইউটিলিসি সার্ভিস নিশ্চিত না করলে মানুষের চলাচল কমবে না। আর এতে যানযটও বাড়বে।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সরকারের মিশন ও ভিশনে একাত্মতা ঘোষণা করেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের উন্নত সোনার বাংলা বিনির্মাণের জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।
পিআইবি’র মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলম ও বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স (বিআইপি)’র সভাপতি অধ্যাপক ড. আকতার মাহমুদ।
পরে মন্ত্রী কর্মশালায় অংশ নেয়া ৩০ জন প্রশিক্ষণার্থীর হাতে সনদ তুলে দেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...