ব্রেকিং নিউজ :
আন্দোলন সংগ্রামে ব্যর্থ হয়ে ধর্ম ব্যবসায়ীদের মাঠে নামিয়েছে কুচক্রীমহল : আমির হোসেন আমু সরকার কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের ৩ কোটি ডোজ বিনামূল্যে সরবরাহ করবে নতুন তথ্য সচিব খাজা মিয়া যোগদান করেছেন শ্রীলঙ্কায় কারাগার ভাঙার প্রচেষ্টায় নিহত ৮ নতুন পিএসও-কে লে. জে. পদের ব্যাংক ব্যাজ পরানো হয়েছে ভাস্কর্যকে মূর্তির সাথে তুলনা বিভ্রান্তি-উস্কানির অপচেষ্টা মাত্র : তথ্যমন্ত্রী পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে সরকার : পরিবেশ মন্ত্রী রিটার্ন দাখিলের সময় বাড়লো এক মাস ডোপ টেস্টে মাদক প্রমাণে কুষ্টিয়ায় ৮ পুলিশ সদস্য চাকরিচ্যুত নকল মাস্ক : জেএমআই চেয়ারম্যানের জামিন বাতিল প্রশ্নে হাইকোর্টের রুল
  • আপডেট টাইম : 17/11/2020 06:41 PM
  • 8 বার পঠিত

জাতীয় সংসদের সাবেক ডেপুটি স্পিকার, ৬ বারের সংসদ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা, ঐতিহাসিক আগরতলা মামলার অন্যতম অভিযুক্ত কর্নেল (অব.) শওকত আলীর দাফন সম্পন্ন হয়েছে।
শরীয়তপুরের নড়িয়া বিএল উচ্চ বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় জানাজা শেষে নিজ গ্রাম দক্ষিণ নড়িয়ায় পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।
শওকত আলীর মরদেহবাহী সশস্ত্র বাহিনীর হেলিকপ্টার আজ সকাল ১০টা ৩৭ মিনিটে শরীয়তপুর ধানুকা স্টেডিয়ামে অবতরণ করে। সেখান থেকে তাকে তার নিজবাড়ি নড়িয়ায় নেয়া হয়। সকাল ১১টা থেকে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য নড়িয়া শহীদ মিনারে শওকত আলীর মরদেহ রাখা হয়। বাদ জোহর নড়িয়া বি এল উচ্চ বিদ্যালয়ে নামাজে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে চির নিদ্রায় শায়িত হন বীর মুক্তিযোদ্ধা কর্নেল (অব.) শওকত আলী।
তার জানাজায় আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষের ঢল নামে। জানাজায় অন্যান্যের মধ্যে পানিসম্পদ উপমন্ত্রী ও শরীয়তপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য একেএম এনামুল হক শামীম, শরীয়তপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন অপু, শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার অংশ নেন।
এ সময় তার জীবন আদর্শ তুলে ধরে পানিসম্পদ উপমন্ত্রী বলেন, তিনি একজন গুণী নেতা ছিলেন। এ সময় তিনি তার রুহের মাগেফিরাত কামনা করে দোয়া চান।
সোমবার বাদ মাগরিব তার প্রথম নামাজে জানাযা বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে বিকেল সাড়ে ৩টায় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য তার মরদেহ জাতীয় শহীদ মিনারে রাখা হয়।
ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় সোমবার সকাল সাড়ে ৯টায় তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। জাতীয় সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা যায়, শওকত আলী কিডনির জটিলতা, ডায়াবেটিস ও নিউমোনিয়ায় ভুগছিলেন। তার উচ্চ রক্তচাপ এবং হৃদরোগও ছিল। এ কারণে তিনি সিএমএইচে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। শওকত আলী হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন। ২৯ অক্টোবর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে, এক মেয়েসহ আত্মীয়-স্বজন, অসংখ্য গুণগ্রাহী ও রাজনৈতিক সহকর্মী রেখে গেছেন।
শওকত আলীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।
১৯৬৯ সালে তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানী শোসকগোষ্ঠী কর্তৃক রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিবুর রহমান ও আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় শওকত আলীকে ২৬ নম্বর আসামী করা হয় এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে একসঙ্গে তিনি কারাবাস করেছেন।
শওকত আলী সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা ছিলেন। কর্নেল পদে থাকা অবস্থায় তিনি অবসরে যান। এরপর তিনি শরীয়তপুর-২ (নড়িয়া) আসন থেকে ৬ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রক্ষমতায় এলে তিনি জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার হন।
তিনি মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এবং ৭১ ফাউন্ডেশনের প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...