ব্রেকিং নিউজ :
জেন্ডার ভারসাম্য ও সমতা ভিত্তিক সমাজ গড়তে গণমাধ্যমের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ : মহিলা পরিষদ করোনা পরিস্থিতিতেও বিনামূল্যে এইডস রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী লেকসহ রমনা পার্কের সার্বিক সৌন্দর্য বৃদ্ধিকরণ প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের পরামর্শ শান্তিপূর্ণভাবে বিরোধ নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বিশ্বে অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে : রাষ্ট্রপতি সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশের সর্বত্র শান্তি বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর : প্রধানমন্ত্রী সিলেট বিভাগে ২৪ ঘন্টায় করোনায় সুস্থ হয়েছেন ৩৩ জন শুরু হলো বঙ্গবন্ধু জাতীয় টার্গেটবল আজ থেকে শুরু হয়েছে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বিজয়ের মাস ডিসেম্বর ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজের নবনিযুক্ত কমান্ড্যান্টের দায়িত্ব গ্রহণ বর্ষা মৌসুমের আগেই দক্ষিণ সিটির খাল দখলমুক্ত করা হবে : ডিএসসিসি মেয়র
  • আপডেট টাইম : 21/02/2017 01:52 PM
  • 42 বার পঠিত
প্রত্যেক মুসলমান পিতা-মাতার কর্তব্য হচ্ছে, ছেলেমেয়েদের যথাযথভাবে ধর্ম-কর্ম প্রতিপালনের উপযোগী করে গড়ে তোলা
জহানারা খাতুন (ফ্লোরা): প্রত্যেক মুসলমান পিতা-মাতার কর্তব্য হচ্ছে, ছেলেমেয়েদের যথাযথভাবে ধর্ম-কর্ম প্রতিপালনের উপযোগী করে গড়ে তোলা। আল্লাহর খাঁটি বান্দারূপে ইহলৌকিক জীবনযাপনে অভ্যস্ত হওয়ার পথ সুগম করে দেওয়া। হাশরের দিন প্রত্যেক মুসলমান অভিভাবককে এজন্য জবাবদিহি করতে হবে। যে সদুত্তর দিতে ব্যর্থ হবে তাকে ভোগ করতে হবে কঠোর শাস্তি। আল্লাহর বিধি-নিষেধের কথা বাতলে দিয়ে সব মানুষকে স্ব স্ব বিবেক-বুদ্ধি খাটিয়ে পার্থিব জীবনযাপন করার সুযোগ দিয়েছেন। বিপদগামীদের সতর্ক করে দিয়ে আল্লাহতায়ালা বলেছেন, ‘পাপ কাজ করার সুযোগ দিয়ে তাদের জাহান্নামের পথ পরিষ্কার করা হয়, আমার এই কৌশল অব্যর্থ সন্দেহ নেই।’ -সূরা আরাফ: ১৮৩ পবিত্র কোরআনে আল্লাহতায়ালা মানুষ ও নিরাকার জিন সৃষ্টির সম্পর্কে স্পষ্টাক্ষরে ঘোষণা করেছেন, ‘আমি জিন ও মানুষ সৃষ্টি করেছি আমার ইবাদত-বন্দেগি করার জন্য।’ -সূরা যারিয়াত : ৫৬ এই পবিত্র ঘোষণার তাৎপর্য হচ্ছে জিন ও সৃষ্টির মানুষের কর্তব্য হলো আল্লাহ নির্দেশিত পথ ও পন্থায় এবং নবী করিম (সা.)-এর পথ নির্দেশ ও উপদেশ অনুসারে কাজ করে পার্থিব জীবনযাপন করা। আল্লাহর খাঁটি বান্দা হওয়ার একাধিক পর্যায় রয়েছে। প্রথমে কালেমা তায়্যেবা লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মদুর রাসূলুল্লাহ প্রকাশ্যে মুখে বলে এবং আন্তরিকভাবে বিশ্বাস করে পবিত্র ইসলাম ধর্মের গণ্ডিভূত তথা মুসলমান হতে হয়। দ্বিতীয় পর্যায় হচ্ছে, ইসলামি জীবনযাপনে অভ্যস্ত হওয়ার জন্য সচেষ্ট হওয়া। এর পরের পর্যায় হচ্ছে, পরহেজগার অর্থাৎ খাঁটি বান্দা হওয়ার জন্য তৎপর হওয়া। এ পর্যায়ে উপনিত হওয়ার লক্ষণ হচ্ছে, পবিত্র কোরআন-হাদিসের ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র বিধানাবলী পালনে গাফিলতি করলে বা ব্যর্থ হলে লজ্জা ও অনুশোচনায় অধির হওয়া। আল্লাহর নিকট অঙ্গীকার করে তা যথাযথভাবে পালন করতে ব্যর্থ হওয়ায় আন্তরিকভাবে লজ্জিত ও অনুতপ্ত না হলে- ঈমানের দৃঢ়তা থাকতে পারে না; এমনকি ঈমানহানিও ঘটতে পারে। হজরত নবী করিম (সা.) বলেছেন, লজ্জা ঈমানের একটি অঙ্গ। যার লজ্জা নেই তার ঈমান নেই। নামাজ মানুষকে পাপ কাজ থেকে দূরে রাখে। কোনো পাপ কাজে শামিল হওয়ার প্রশ্ন দেখা দিলে তার মনে বিরাট ভীতির সঞ্চার হয়, যার ফলে তার পক্ষে পাপ কাজ করা সম্ভব হয় না। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হচ্ছে, নিশ্চয়ই নামাজ ব্যভিচার ও খারাপকাজ হতে মানুষকে রক্ষা করে।’ -সূরা আনকাবুত : ৪৫ পরহেজগার লোকদের মধ্যে কোনো প্রকার অহমিকা-অহংকার, লোভ-লালসা, হীনমন্যতা ও আল্লাহর কোনো সৃষ্টির প্রতি অবহেলা-অবজ্ঞা থাকতে পারে না; তারা সেবামূলক কাজ করার জন্য থাকে উদগ্রীব। পরহেজগার বান্দাদের মর্যাদা সম্পর্কে ইরশাদ হচ্ছে, ‘তোমাদের মধ্যে ওই ব্যক্তি আল্লাহর নিকট অধিকতর প্রিয়, যে অধিকতর পরহেজগার।’ -সূরা হুজরাত: ১৩ ‘পাথিব জীবনে যারা আমার প্রদর্শিত সহজ-সরল পথ অনুসরণ করবে, তাদেরকে আমি অভয় দিচ্ছি তারা কখনও দুর্দশাগ্রস্ত হবে না।’ -সূরা বাকারা : ৩৮ হাদিসে কুদসিতে পরহেজগারদের সৌভাগ্য সম্পর্কে যে আশার বাণী শুনানো হয়েছে তা সত্যিই বিস্ময়কর। সেখানে বলা হয়েছে যে, আমি আমার নেককার খাঁটি বান্দাদের জন্য এমন সব নেয়ামত তৈরি করে রেখেছি, যা কেউ কখনও চোখে দেখেনি, কানে শুনেনি, যা তাদের ধারণা বহির্ভূত। নামকাওয়াস্তে মুসলমান আল্লাহর কাম্য নয়, তিনি চান পুরোপুরি মুসলমান। তিনি সবার প্রতি উদ্বাত্ত আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘হে লোক সকল! তোমরা পুরোপুরিভাবে ইসলাম গ্রহণ কর, শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করো না, কেননা সে তোমাদের ঘোর শত্রু।’ -সূরা বাকারা : ২০৮ এখানে পুরোপুরি মুসলমান বলতে ঈমান, ধর্ম-কর্ম, লেবাস-পোশাক, সুরত, কর্তব্য পরায়নতা ইত্যাদি বুঝানো হয়েছে। নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, ‘পৃথিবীত যে ধরনের বা যে জাতীয় লেবাস-পোশাক পরিধান করবে, হাশরের দিন তাদেরকে সে জাতীয় লোকদের সঙ্গে উঠানো হবে। অর্থাৎ ইসলামি পোশাক-পরিচ্ছেদ পরিধান করে জিন্দেগি কাটাবে তারা, পাপী-তাপী যাই হোক না কেন, হাশরের দিন মুসলমানদের দলভুক্ত হবে। যে অতীত জীবনের পাপাচারের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা ও তওবা করে খাঁটি মুসলমানের মতো জীবনযাপন করবে বলে দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়, পরম করুণাময় আল্লাহতায়ালা শুধু ক্ষমা নয় তার বিগত জীবনের পাপাচারকে পুণ্যে পরিণত করে দিতে পারেন। পবিত্র কোরআনে তওবাকারীদেরকে আশার বাণী শুনিয়ে বলা হয়েছে, যারা তওবা করে ঈমান আনে এবং সৎকাজ (ধর্মীয় বিধান অনুসারে) করে, আল্লাহতায়ালার তাদের পাপগুলোকে পুণ্যে পরিণত করে দেন। আল্লাহতায়ালা ক্ষমাশীল পরম দয়ালু, তিনি তওবাকারীদের কে অভয় দিয়ে বলেছেন, ‘আমি অবশ্যই তার প্রতি ক্ষমাশীল হবো যে (সহিহ নিয়তে) তওবা করে, ঈমান আনে সৎ কাজ ধর্মীয় বিধান অনুসারে করে এবং সৎপথে থাকে অবিচলিত। -সূরা ত্বহা : ৮২ পবিত্র কোরআনে সৎপথে অবস্থানকারীদেরকে অভয় দিয়ে বলা হয়েছে, ‘যারা সৎপথ অবলম্বন করবে আল্লাহ তাদেরকে সৎপথে চলার শক্তি সামর্থ্য বাড়িয়ে দিবেন এবং তাদেরকে মোত্তাকি হওয়ার সৌভাগ্য দান করবেন। -সূরা মুহাম্মদ : ১৭ প্রসঙ্গত আল্লাহতায়ালা হজরত আদম (আ.) কে যখন পৃথিবীতে প্রেরণ করেন তখন তিনি বলেছিলেন, পৃথিবীতে না জানি কতই-না দুঃখ-দুর্দশার মধ্যে জীবনযাপন করতে হবেভ তদুত্তরে আল্লাহ বলেছিলেন, ‘পাথিব জীবনে যারা আমার প্রদর্শিত সহজ-সরল পথ অনুসরণ করবে, তাদেরকে আমি অভয় দিচ্ছি তারা কখনও দুর্দশাগ্রস্ত হবে না।’ -সূরা বাকারা : ৩৮ অতএব, হতাশা ও নৈরাজ্যে হাবুডুবু না খেয়ে সময় থাকতে সর্বশক্তিমান আল্লাহর শরণাপন্ন হয়ে পরকালের পাথেয় সংগ্রহে আত্মনিয়োগ করাই বুদ্ধিমত্তার পরিচায়ক। আল্লাহতায়ালা আমাদের তওফিক দান করুন। আমিন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...