ব্রেকিং নিউজ :
কার্যকরভাবে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের জন্য ইরানী কূটনীতিকের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে শিগগিরই বিদ্যুৎ পাচ্ছেন চরের অবশিষ্ট মানুষ বাংলাদেশের জলবায়ু প্রকল্পে এএসইএম অংশীদারদের বিনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর খালেদা জিয়াকে যদি স্লো পয়জনিং করা হয় তাহলে হুকুমের আসামী হবেন ফখরুল : ওবায়দুল কাদের সন্ত্রাসবাদ দমনে সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী সিলেটকে চিকিৎসা সেবার অন্যতম কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করা হবে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী চট্টগ্রামে ফায়ার সার্ভিস কর্মীর মৃত্যু করোনায় চট্টগ্রামে নতুন ৫ জন শনাক্ত বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ডা. মিলন এক উজ্জ্বল নক্ষত্র: রাষ্ট্রপতি স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে ডা. মিলনের আত্মত্যাগ নতুন গতি সঞ্চারিত করেছিল: প্রধানমন্ত্রী
  • আপডেট টাইম : 15/11/2021 05:46 PM
  • 8 বার পঠিত

অবৈধ সম্পদ অর্জন এবং তথ্য গোপনের মামলায় পৃথক ধারায় আট বছরের কারাদন্ডের বিরুদ্ধে বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের আনা আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেছেন হাইকোর্ট।
একইসঙ্গে তার অর্থদন্ড স্থগিত করেছেন আদালত। বিচারপতি মো.সেলিমের হাইকোর্টের একক বেঞ্চ আজ এ আদেশ দেন।
আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান।
গত ১২ অক্টোবর ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭ এর বিচারক মো. শহিদুল ইসলাম পৃথক ধারায় এই মামলায় বাবরকে মোট ৮ বছরের দন্ড দিয়ে রায় দেন।
আট বছরের কারাদন্ডের বিরুদ্ধে খালাস চেয়ে গতকাল আপিল করেছেন লুৎফুজ্জামান বাবর।
বাবরের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের মামলাটি ২০০৮ সালের ১৩ জানুয়ারি রমনা থানায় দায়ের করা হয়। মামলাটি করেন দুদকের সহকারী পরিচালক মির্জা জাহিদুল আলম। তদন্ত শেষে ওই বছরের ১৬ জুলাই দুদকের উপসহকারী পরিচালক রূপক কুমার সাহা আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।
২০০৭ সালের ২৮ মে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে যৌথবাহিনীর হাতে আটক হন। সে থেকে কারাগারে বাবর। চট্টগ্রামে ১০ ট্রাক অস্ত্র উদ্ধার মামলা এবং ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় দন্ডিত হন বাবর। এসব মামলায়। তার সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদন্ড হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...